চুলের রং পরিবর্তন এবং গোঁফ কেটে ছদ্মবেশ নেয় প্রতারক সাহেদ

বোরকা পরে নৌকায় করে পালিয়ে যাচ্ছিল সাহেদ ! চুলের ‘রং’ পরিবর্তন এবং ‘গোঁফ’ কেটে ছদ্মবেশ নেয় প্রতারক সাহেদ

>আলো’চিত রিজেন্ট হাসপাতাল প্রতারণা মামলার প্রধান পলাতক আসামি ও রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদকে ‘গ্রে’ফতার করা হয়েছে। >আজ বুধবার স’কালে সাতক্ষীরা সীমান্ত থে’কে অ’বৈধ অস্ত্রসহ সাহেদকে গ্রে’ফতার করে র‍্যাব।

র‍্যাব জানায়, দালালদের মাধ্যমে সীমান্ত পার হয়ে পালানোর চেষ্টা করছে সাহেদ এমন তথ্যের> ভিত্তিতে অভিযান চালায় র‍্যাব। সারারাত অভিযান শেষে সকাল >৫.১০ মিনিটে তাকে গ্রে’ফতার করা হয়। এসময় সাহেদর সাথে ৩ রাউন্ড গু’লিসহ অ’বৈধ পিস্তল পাওয়া যায়।

>র‍্যাব আরও জানায়, বোরকা পরে নৌকায় করে পালিয়ে যাচ্ছিল সাহেদ। >নৌকায় উঠার আগে নদীর পাড় থেকে তাকে গ্রে’ফতার করা হয়। এসময় সাহেদকে পারপার করা নৌকার মাঝি সাঁতরে পালিয়ে যায়। সাহেদ মোটা থাকার কারণে দৌড়ে পালাতে পারেনি বলে জানায় র‍্যাব।

>র‍্যাব বলেন, সাতক্ষীরায় সাহেদ ঘন ঘন অবস্থান পরিবর্তন করছিল। যাতে চিনতে না পারা যায় >এজন্য চুলের রং সাদা থেকে কালো করে সাহেদ। গোঁফ কেটে ফেলেছিলো। তার পরিকল্পনা ছিলো মাথা ন্যাড়া করে ফেলা।

এর আগে করোনা পরীক্ষা না করেই সার্টিফিকেট প্রদানসহ বিভিন্ন> অভিযোগে রিজে’ন্ট হাসপাতা’র বিরুদ্ধে গত ৮ জুলাই মামলা করে র‌্যাব। উত্তরা পশ্চিম থানায় রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সাহেদকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করা হয়।

গত ৬ জুলাই সোমবার’ র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত রিজেন্ট হাসপাতালের দুটো শাখায়> (উত্তরা ও মিরপুর) অভিযান চালায়। বিভিন্ন অভিযোগের কারণে শাখা দুটির কা’র্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়। ৭ জুলাই বিকেলে উত্ত’রায় রিজেন্টের প্রধান কার্যালয় সিলগালা করে দেয় র‌্যাব।

গণপরিবহন চলবে’ আগের সিদ্ধান্ত ‘ভুল’ বোঝাবুঝি: ‘নৌ-প্রতিমন্ত্রী’

করোনা ভা’ইরাসের পরিস্থিতিতে ঈদের আগে ৫ দিন এবং ঈদের পরে ৩ দিন >পর গণপরিবহন ব’ন্ধের যে সিদ্ধান্ত জানানো হয়েছিল তা ভুল বোঝাবুঝি ব’লে জানিয়েছেন নৌ-পরিবহন ‘প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেছেন, ‘আজকে বৈঠকের >আগেও আমরা বলেছিলাম ঈদের আগের ৫ দিন এবং পরে ৩ দিন গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। সেটা একটা ভুল বোঝাবুঝি ছিল। এখন সিদ্ধান্ত হয়েছে পণ্যবাহী যে কোনো পরিবহন বন্ধ থাকবে।’

বুধবার (১৫ জুলাই) দুপুরে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনে কক্ষে ঈদুল আজহা উপলক্ষে লঞ্চ,>ফেরি, স্টিমার চলাচল ও যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের কর্মপন্থা নির্ধারণী এক বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।

সাংবাদিকদের এক প্র’শ্নের ‘জবাবে তিনি বলেন, ‘যখন আজ’কে বৈঠক শুরু করেছিলাম তখন আমরাও বলেছিলাম ‘গণপরিবহন ঈদের আগে ৫ দিন ও ঈদের পরে ৩ দিন বন্ধ থাক’বে।’‘পরবর্তীতে আমাদের সঙ্গে মন্ত্রী >পরিষদ স’চিবের সঙ্গে কথা হয়েছে, এখানে একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।

এখানে যে সিদ্ধান্ত >হয়েছে, সেটা হচ্ছে ঈদের আগে ৫ দিন ও পরে ৩ দিন পণ্যবাহী যে কোনো ধরনের যানবাহন বন্ধ থাকবে। কিন্তু আ’মাদের গণপরিবহন, গণপরিবহনের একটা অং’শ যাত্রীবা’হী লঞ্চ বা ফেরি চালু থা’কবে।’সে ক্ষেত্রে ট্রেন ‘বা বাসও কি চলাচল করতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘>আমরা এটার সমন্বয় করে নেব। আমি যতটুকু বুঝ’তে পারছি ট্রেন-বাস’ও চলবে।’”’

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *